Breaking News
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

শিক্ষার্থী বন্ধুরা, আজ আমি আপনাদের জানাবো শিক্ষা সম্পকির্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যা আপনার অবশ্যই জানা উচিত। বাংলাদেশ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়  এর অধীন অধিদপ্তর, শিক্ষা কি বা কাকে বলে, একজন আদর্শ কাকে বলে প্রভৃতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক শিক্ষা ও গণশিক্ষাবিষয়ক প্রশাসনের সর্বচ্চস্তর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এর অধীন অধিদপ্তর কয়টি ও কি কি?

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়  এর অধীন অধিদপ্তর চারটি

  1. প্রাথমিক শিক্ষাঅধিদপ্তর (DPE)
  2. উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো (IGNITE),
  3. জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমী (NAPE) এবং
  4. বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ইউনিট (CPEIMU)

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়  এর ভিশন ও মিশন :

রূপকল্প (Vision) :

মানসম্মত প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও জীবনব্যাপী শিক্ষা।

অভিলক্ষ (Mission) :

প্রাথমিক শিক্ষার সুযােগ সম্প্রসারণ ও গুণগতমান উন্নয়নের মাধ্যমে সবার জন্য প্রাথমিক ও জীবনব্যাপী শিক্ষা নিশ্চিতকরণ।

শিক্ষক/ আদর্শ শিক্ষক কে?

যিনি শেখান তিনিই শিক্ষক। আমরা সাধারণত শিক্ষক তাকেই বলি। যিনি কোন প্রতিষ্ঠানে, গৃহে বা অন্য কোথাও শােনা, বলা বা বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় শিখিয়ে বুদ্ধিমত্তার বিকাশ ঘটান। শিক্ষণ প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে যিনি শিক্ষা দেন তিনিই শিক্ষক। যে-কোনাে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল স্তম্ভ হলেন শিক্ষক। শিক্ষকতা একটি মহৎ ও সম্মানজনক পেশা। এ পেশার সামাজিক মর্যাদাও অনেক। তার ওপর যারা নির্ভেজাল ও নিঝঞ্চাট জীবন-যাপন করতে চান তাদের জন্য শিক্ষকতা নিঃসন্দেহে একটি আদর্শ পেশা। আন্তরিকতা ও নিষ্ঠাই হচ্ছে শিক্ষকের পেশার উৎস। জ্ঞানভিত্তিক আলােকিত সমাজ গড়তে শিক্ষকদের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

শিক্ষা কী?

সাধারণ অর্থে জ্ঞান বা দক্ষতা অর্জনই হলাে শিক্ষা। ব্যাপক অর্থে পদ্ধতিগত জ্ঞানলাভের প্রক্রিয়াকেই শিক্ষা বলে। তবে শিক্ষা হলাে সম্ভাবনার পরিপূর্ণ বিকাশ সাধনের অব্যাহত অনুশীলন। অন্যভাবে বলা যায়, শিক্ষা হলাে বিকশিত ব্যক্তিত্বের পরিপূর্ণ প্রকাশ । বাংলা শিক্ষা শব্দটি এসেছে সংস্কৃত শব্দ ‘শাস’ ধাতু থেকে, যার অর্থ হচ্ছে শাসন করা বা উপদেশ দান করা। শিক্ষার ইংরেজি প্রতিশব্দ Education শব্দটি এসেছে ল্যাটিন শব্দ Educere বা Educatum থেকে, যার অর্থ to lead out অর্থাৎ ভেতরের সম্ভাবনাকে বাইরে নিয়ে আসা। শিক্ষার সংজ্ঞা দিতে গিয়ে মনীষী সক্রেটিস বলেছেন- “শিক্ষা হলাে মিথ্যার অপনােদন ও সত্যের বিকাশ।’ এরিস্টটল বলেছেন- ‘সুস্থ দেহে সুস্থ মন তৈরি করাই হলাে শিক্ষা’। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর মনে করেন শিক্ষা হলাে তাই, যা আমাদের কেবল তথ্য পরিবেশনই করে না বিশ্বসত্তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের জীবনকে গড়ে তােলে।

প্রাথমিক বা শিশু শিক্ষা কী?

 আনুষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু করার জন্য প্রয়ােজনীয় মানসিক ও দৈহিক যােগ্যতা অর্জনের পরিবেশ তৈরি এবং সে পরিবেশে শিশুদের খাপ খাওয়ানাে, নিয়মিত আসা-যাওয়া করা এবং কিছু নিয়ম-নীতি অনুসরণে উৎসাহিত করে পরবর্তীতে শিক্ষা গ্রহণে উপযােগী করে গড়ে তােলাই হচ্ছে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা। এই শিক্ষা মূলত প্রাক-লিখন, প্রাক-গঠন ও প্রাক-গণিতের সমষ্টি। এর সঙ্গে রয়েছে ছবি আঁকা, ছড়া-গল্প বলা, গান, নাচ ও খেলাধুলা। এ শিক্ষার মাধ্যমে শিশুকে আনুষ্ঠানিকভাবে লেখাপড়া শুরুর জন্য প্রয়ােজনীয় শিখন দক্ষতাসহ মানসিক ও শারীরিক দক্ষতা দ্বারা প্রস্তুত করে তােলা হয়। সাধারণত ৩-৫ বছর বয়সী শিশুকে প্রস্তুতিমূলক শিক্ষা দেয়া হয়ে থাকে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এটি ছােট ওয়ান’ বা শিশু শ্রেণি নামে পরিচিত। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার মেয়াদকাল এক বছর ।

শিশু কারা?

শিশু অধিকার সনদ অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে সবাই শিশু ।। ফ্যাক্টরি আইন অনু্যায়ী ১৪ বছরের কমবয়সী শ্রমিকরা শিশু শ্রমিক । বাংলাদেশ সরকারের নিয়মানুযায়ী অনূর্ধ্ব ১৬ বছরের সবাই শিশু। এসব তাে আইনের কথা। আসলে আমরা শিশু বলতে অভ্যস্ত জন্ম পরবর্তী ৩। বছর পর্যন্ত বয়সী বাচ্চাদের। এমনকি ৩-৮ বছর বয়সী বাচ্চাদেরকেও শিশু বলে থাকি। ৮-১৬ বছর বয়সী বাচ্চাদের বলে থাকি কিশাের-কিশােরী।

শিশু শিক্ষা বা প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কী?

জন্মের পর থেকে তিন বছর বয়স পর্যন্ত শিশুর অভিজ্ঞতা উন্নয়নের জন্য প্রয়ােজনীয় উদ্দীপনা যােগানাের ব্যবস্থাকেই শিশু শিক্ষা বলা হয় । এই শিক্ষার উদ্দেশ্য হলাে শিশুর সর্বোত্তম শারীরিক, সামাজিক, মানসিক, বুদ্ধিবৃত্তির বিকাশ ও অর্জিত দক্ষতার ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং শিশুকে প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত করে তােলা। শিশু শিক্ষা মূলত প্রাক-লিখন, প্রাক-গঠন ও প্রাক-গণিতের সমষ্টি। এই শিক্ষা মূলত ছড়াগল্প বলা, ছবি আঁকা, নাচ-গান ও খেলাধুলা । শিশু শ্রেণি, নার্সারী, প্লে-গ্রুপ ইত্যাদি শ্রেণিতে ছােট ছােট শিশুদের পরিকল্পিত কাজ ও খেলার মাধ্যমে দৈহিক, আবেগিক, সামাজিক, মানসিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশ ঘটানাের চেষ্টা করা হয় এটাও শিশু শিক্ষার একটা উল্লেখযােগ্য দিক। সাধারণত ৩-৫ বছর বয়সী শিশুকে প্রস্তুতিমূলক শিক্ষা দেয়া হয়ে থাকে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এটি ‘ছােট ওয়ান’ বা শিশু শ্রেণি নামে পরিচিত। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষায় মেয়াদকাল এক বছর ।

About Primary preparation